মঙ্গলবার ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

নওগাঁয় ভূমি অফিসের অব্যবহৃত দাখিলাপত্র গায়েব, থানায় মামলা না করে জিডি দায়ের

উত্তরা ডেস্ক   |   সোমবার, ০৪ অক্টোবর ২০২১ | প্রিন্ট

নওগাঁয় ভূমি অফিসের অব্যবহৃত দাখিলাপত্র গায়েব, থানায় মামলা না করে জিডি দায়ের

নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ভোঁপাড়া-পাঁচুপুর ভূমি অফিসের “ভূমি উন্নয়ন কর” পরিশোধের রশিদ বই (দাখিলা) থেকে কার্বন কপিসহ অব্যবহৃত ৪টি মূল পাতাসহ ৮টি পাতা গায়েব করার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর দাখিলা বইয়ের ওই পাতাগুলো বাতিল করে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে জেলা প্রশাসন। তবে রশিদ বই থেকে কিভাবে পাতাগুলো গায়েব হলো তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে অভিযোগ উঠেছে দায়িত্বরত কর্মকর্তা অসৎ উদ্দেশ্যে পাতাগুলো গায়েব করেছেন। ঘটনা অনুসন্ধানে তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আত্রাই উপজেলার ভোঁপাড়া-পাঁচুপুর ভূমি অফিসে সম্প্রতি ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের ৫৬/২০২১-২২ নম্বর বহি (দাখিলা) থেকে অব্যবহৃত মূল ৪ টি পাতাসহ মোট ৮ টি পাতা গায়েব হয়। দাখিলা বইয়ে ২৩৮৯০১ থেকে ২৩৯০০০ পর্যন্ত মোট দুশ’টি পাতা ছিলো। এরমধ্যে ২৩৮৮৯৭ থেকে ২৩৯০০০ নম্বর পর্যন্ত পাতাগুলো কার্বন কপিসহ গায়েব হয়। পরে হারিয়ে গেছে মর্মে থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করে বিষয়টি লুকানোর চেষ্টা করা হয়। এই অভিযোগ সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা জাকির হোসেন দাবি করেন অফিস থেকেই দাখিলা পাতাগুলো চুরি হয়েছে। কে বা কারা চুরি করে নিয়ে গেছে। চুরির ঘটনায় মামলা না করে থানায় জিডি করলেন কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, উর্ধ্বতন কর্মকর্তার দেওয়া পরামর্শে জিডি করা হয়েছে।

আত্রাই থানার পরিদর্শক (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, ভোঁপাড়া-পাঁচুপুর ভূমি অফিসে কর্মরত ইউনিয়ন ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা জাকির হোসেন নিজেই ২৩ আগস্ট আত্রাই থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন। জিডিতে দাখিলা বহি ও পাতাগুলোর নম্বর উল্লেখ করলেও কিভাবে হারিয়ে গেছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য দেননি জাকির হোসেন।

ঘটনার কয়েকদিন পর আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. ইকতেখারুল ইসলাম ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মিল্টন চন্দ্র রায়ের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদকে ঘটনার বিষয়ে অবহিত করেন। জানার পর জেলা প্রশাসক বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আমলে নিয়ে গত ৫ সেপ্টেম্বর দাখিলার ওই পাতাগুলো বাতিল করে একটি বিজ্ঞপ্তি (স্মারক নম্বর ১৬৭২) জারি করেন। জারিকৃত বিজ্ঞপ্তিটি ভূমি মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে অভিযুক্ত কর্মকর্তা জাকির হোসেনকে দায়িত্বে রেখেই ঘটনা তদন্ত করছেন উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নওগাঁর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মিল্টন চন্দ্র রায় জানান, ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ব্যবহৃত দাখিলা বহি বা দাখিলার পাতাগুলো অতিগুরুত্বপূর্ণ। পাতাগুলো কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে গায়েব করা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (উইএনও) ঘটনাটি তদন্ত করছেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উত্তরা প্রতিদিন/ তৌফিকুল ইসলাম

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১:৫৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০৪ অক্টোবর ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
এনায়েত করিম সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত)
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com