শনিবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

লালপুরে তিনগ্রামের ৩ শতাধিক পরিবার পানি বন্দি

মো. আশিকুর রহমান টুটুল   |   শনিবার, ২৮ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট

লালপুরে তিনগ্রামের ৩ শতাধিক পরিবার পানি বন্দি

পানি নিস্কাশনের পথ না থাকায় নাটোরের লালপুর উপজেলার ওয়ালিয়া ইউপির ২টি ওয়ার্ডের ৩ গ্রামে বৃষ্টির পানি জমে প্রায় ৩শতাধিক পরিবার পানি বন্দি হয়ে জীবন যাপন করছে। প্রায় বাড়ির উঠানে ও ঘরের মাধ্যে পানি প্রবেশ করেছে এতে পানি বন্দি পরিবারে বসবাসকারী শিশু ও বৃদ্ধারা সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছে। শুধু মাত্র একটি পাকা ড্রেণ নির্ম ান না করায় গত দুই বছর যাবত এই তিন গ্রামের মানুষ বর্ষা মৌসুম আসলেই পানি বন্দি হয়ে পড়ে।

এই বন্দি দশা থেকে মুক্তি পেতে দ্রুত পাকা রাস্তার পাশ দিয়ে স্থাযী ড্রেন নির্মানের দাবি জানিয়েছেন পানি বন্দি তিন গ্রামের মানুষেরা।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ওয়ালিয়া ইউপির ৫ নং ওয়ার্ডের আংশিক ও ৬ নং ওয়ার্ডে ওয়ালিয়া পূর্ব কারিগর পাড়া, আমিন পাড়া ও হিন্দুুপাড়া তিন গ্রামের পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় বর্ষা মৌসমে বৃষ্টির পানি জমে গত ২০ দিন যাবত পানি বন্দি হয়ে আছে। বাড়ির উঠান ও বসত ঘরে জমে আছে হাটু পানি। পানি বন্দি থেকে মুক্তি পেতে অনেক পরিবার নিজের ঘর বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র বাড়ি ভাড়া নিয়ে বাস করছেন। কেউ আবার ঘরের মধ্যে পানি জমে থাকায় চৌকির উপরে রান্না-বান্না করছেন। এভাবে প্রতিদিন হাঁটু পানি মারিয়ে দৈনন্দিন কাজ করতে হচ্ছে এই ৩ শতাধিক পরিবারকে। দীর্ঘ সময় পনি বন্দি হয়ে থাকায় পরিবার গুলিতে দেখা দিতে শুরু করেছে পনি বাহিত রোগও।

সঞ্জয় কুমার মালি, সুজন কুমার মালি, ও আনু জানান,‘আগে যে দিক দিয়ে পানি নিস্কাশন হতো বর্তমানে সেই পথ বন্ধ থাকায় গত দুই বছর যাবত বর্ষা মৌসুম আসলেই বৃষ্টির পানি জমে আমাদের এই তিন গ্রামের মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়ছে। জনপ্রতিনিধি সহ সকলকে জানিয়েও একটি ড্রেণ নির্মান হয়নি।’

প্রশান্ত কুমার চক্রবর্তী জানান,‘বর্তমানে আমার ঘরের মধ্যে পানি রান্না-বান্না করা খুবই সমস্য। তাই আমি নিজের ঘর বাড়ি ছেরে বর্তমানে ভাড়া বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছি। আমরা এই বন্দি দশা থেকে মুক্তি পেতে চাই।’

ওয়ালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান পানি বন্দির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,‘অপরিকল্পিত ভাবে বাড়ি ঘর নির্মান করার ফলে পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করতে হলে পাকা রাস্তার পাশ দিয়ে স্থায়ী ড্রেন নির্মান করতে হবে যার জন্য বিপুল পরিমান অর্থের প্রয়োজন। এই এলাকার মানুষের পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করতে দ্রুত সরকারী উদ্ধুর্তন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে একটি ড্রেণ নির্মাণ প্রকল্প দিয়ে ড্রেণ নির্মাণ করার জন্য আমরা চেষ্টা করছি।’

লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) শাম্মী আক্তার বলেন,‘সরজমিন পরিদর্শন পূর্বক পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।’

উত্তরা প্রতিদিন/ তৌফিকুল ইসলাম

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:২৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২৮ আগস্ট ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ বাবলু সম্পাদক
এনায়েত করিম প্রধান বার্তা সম্পাদক
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com