মঙ্গলবার ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত রাজশাহীর জনজীবন

শাহ্জাদা মিলন   |   শুক্রবার, ২৭ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট

বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত রাজশাহীর জনজীবন

বৃষ্টির কারনে বন্যার পানি বাড়ায় নদীর পাড় রক্ষায় ব্যাগ ফেলছেন শ্রমিকরা

-উত্তরা প্রতিদিন

সকাল বেলাও রোদের ঝিলিক। দুপুরের পর থেকে শুরু বৃষ্টি। এরপর থেমে থেমে রাত দশটা পর্যন্ত বৃষ্টির দেখা মিলেছে রাজশাহীতে। এর ফলে জনজীবনে নেমে আসে দুর্ভোগ।

শুক্রবার হওয়ায় এদিন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ভ্রমণ পিপাসুদের মিলন মেলা হয়। তবে বেরসিক বৃস্টিতে ভেস্তে গেছে সব আনন্দ। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকলেও ঝুম বৃষ্টির ফলে যেযেভাবে পেরেছেন বিনোদন কেন্দ্রের আশেপাশে গায়ে গা লাগিয়ে বৃস্টি থেকে নিজেদের রক্ষার চেষ্টা করেছেন।

এদিকে বৃস্টির দোহায় দিয়ে অটোরিক্সা চালকরা দাম বাড়িয়েছেন ইচ্ছে মতো। ট্রেনে যারা রাতে রাজশাহীতে ফিরেছেন গতকাল তারা পড়েছিলেন সীমাহীন দুর্ভোগে। কয়েকশো যাত্রীর বিপরীতে পঞ্চাশেক অটোরিক্সা থাকায় সুযোগ বুঝে ভাড়া কয়েকগুণ বাড়তি চাইতে দেখা গেছে চালকদের। উপায় না পেয়ে সেই ভাড়াতে রাজি হয়ে ফিরেছেন গন্তব্যে অনেকে।

কক্সবাজার থেকে ১৮ বছর পর জরুরি প্রয়োজনে দুই দিনের ছুটিতে এসেছেন আতিকুর রহমান স্ত্রী সন্তানসহ। যাবেন আত্নীয়ের বাসায়। রেল স্টেশন থেকে আসাম কলোনীর ভাড়া ঠিক করছিলেন তিনি। তবে অটোরিক্সা চালক ১০০ টাকার নিচে কোন ভাবেই কেউ যাবেন না। কয়েকটি চালকের ফিক্সড করা ভাড়ার কারণে অবশেষে বৃস্টির মধ্যেই সেই ভাড়া দিয়ে গন্তব্য গেলেন তিনি। অথচ স্বাভাবিক সময়ে ভাড়া সর্বোচ্চ ভাড়া ৩০ টাকা। পরে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ক্ষোভ ঝাড়লেন চালকদের উপর।

শুধু আতিক নয় ,তার মতো অনেকেই ঝগড়া করার পরিস্থিতি তৈরি করেছেন চালকদের কারণে। রেল স্টেশন থেকে লক্ষীপুরের রিজার্ভ ভাড়া ৫০ / থেকে ৬০ টাকা হলেও গতকাল ১৫০ টাকার কমে কোন চালক যেতে চাননি। বৃস্টির দোহাই দিয়ে রীতিমত যাত্রীদের পকেট কেটেছেন চালকরা। অথচ রাসিক থেকে নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে বিভিন্ন এলাকার জন্য।

কয়েকজন চালক জানান, বৃস্টিতে ভিজে যাত্রী তুলছি কিছু বেশি না নিলে কি হয়। কিš‘ চালকদের বাড়তি ভাড়ার কারনে অসহায় হয়ে জিম্মি হয়ে পড়ছেন রাজশাহীতে আসা যাত্রীরা।
শুধু রেল স্টেশন নয়, বিনোদন স্পটগুলোতেও একই অবস্থা দেখা গেছে কয়েক জায়গায় । পদ্মার টি বাঁধ থেকে রেল স্টেশন, সাহেববাজারে যাওয়া যাত্রীদের কাছে অটোরিক্সা চালকরা দ্বিগুণ ভাড়া চেয়ে বসছেন। উপায় না পেয়ে যাত্রীরা বাধ্য হয়ে তাদের গন্তব্য চলে যেতে দেখা গেছে।

টি-বাঁধ থেকে ভদ্রা যাবেন ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম। পরিবারের পাঁচ সদস্যকে নিয়ে বেড়াতে এসছিলেন তিনি । কিš‘ বিকেলের বৃস্টিতে কোথাও দাড়ানোর জায়গা না পেয়ে সামনে দাড়ানো অটো রিক্সায় যেতে চাইলে ভাড়া শুনে হতবাক হয়ে যান তিনি। আসার সময় ৮০ টাকা দিয়ে এসেছেন বৃস্টি না থাকা অবস্থায় । অথচ বৃস্টি চলাকালীন ১৩০ টাকায় যেতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। বর্ষাকে পুঁজি করে প্রতিনিয়ত এমন অবস্থার জন্য চালকদের লোভের মানসিকতাকে দায়ী করছেন যাত্রীরা।

এদিকে বৃস্টির কারণে জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া মানুষরা পড়েছিলেন বিপদে। কিছু কিছু এলাকায় পানি জমে যাওয়ার কারণে পরনের কাপড় ভিজেই পার হতে দেখা গেছে তাদের। মহানগরীর বর্নালীর মোড়ের পিছেনের সড়কে রাজীব চত্বরের আগ পর্যন্ত সড়কে পানি জমায় সেখানে নাজেহাল হতে হয়েছে অনেককে। সেখানে ড্রেনের পানি ও সড়কের পানি একাকার হতে দেখা গেছে।

উত্তরা প্রতিদিন / শাহ্জাদা মিলন

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১১:৪০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২৭ আগস্ট ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
এনায়েত করিম সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত)
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com