বৃহস্পতিবার ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রতিবন্ধী রাজ্জাকের ভাগ্যে জোটেনি সরকারি সহায়তা

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিবেদক   |   মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট

প্রতিবন্ধী রাজ্জাকের ভাগ্যে জোটেনি সরকারি সহায়তা

প্রতিবন্ধী আব্দুর রাজ্জাক

-প্রতিনিধি

বসবাস অন্যের জমিতে। প্রতিবন্ধী হওয়ায় শ্রমিকের কাজও করতে পারেন না। কিস্তিতে কেনা চার্জার ভ্যান চালিয়ে কোন রকমে সংসার চালান। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে থমকে গেছে প্রতিবন্ধী আব্দুর রাজ্জাকের জীবন। মহামারীর এ সময় পাননি সরকারি কোন সহায়তা। জীবন বাঁচাতে শিশু সন্তানের লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে হয়েছে। লাগিয়েছেন শ্রমিকের কাজে। ভাগ্যে জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডও।

প্রতিবন্ধী আব্দুর রাজ্জাক (৪০) নওগাঁর মান্দা উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের দুর্গাপুর মংলাপাড়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে। স্ত্রী ফেন্সি বেগম, দুই ছেলে ফয়সাল (১৪) ও আরমানকে (১) নিয়ে তাঁর সংসার।

প্রতিবন্ধী আব্দুর রাজ্জাক জানান, বাবা গিয়াস উদ্দিনের জমাজমি নেই। নানার দেওয়া সামান্য জমিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। জন্মগত শারীরিক সমস্যায় শ্রমিকের কাজও করতে পারেন না। জীবিকার তাগিদেই চার্জার ভ্যান চালিয়ে সংসার পরিচালনা করেন। চারজনের ভরণ-পোষণ যোগাতে প্রতিনিয়ত তাঁকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাসের দুর্যোগে সরকারি বিধিনিষেধের কারণে ভ্যান নিয়ে নিয়মিত রাস্তায় বের হতে পারেন নি। এতে একমাত্র আয়ের পথটিও বন্ধ হয়ে যায়। উপায়ান্ত না থাকায় পঞ্চম শ্রেণিতেই ছেলে ফয়সালের লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে হয়েছে। সে এখন স্টীয়ারিং ভটভটিতে শ্রমিকের কাজ করে।

প্রতিবন্ধী আব্দুর রাজ্জাকের অভিযোগ, প্রতিবন্ধী হয়েও তাঁর ভাগ্যে আজো জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড। করোনা পরিস্থিতিতে পাননি সরকারি কোন সহায়তা। স্থানীয় মেম্বারকে বারবার বলেও কোন কাজ হয়নি। একদিকে সাপ্তাহিক ঋণের কিস্তি পরিশোধ; অন্যদিকে পরিবারের খাবার যোগাড় সব মিলিয়ে দুর্বিসহ দিন কাটছে তাঁর।

স্থানীয় মৈনম ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রতিবন্ধী রাজ্জাক গনেশপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ছিলেন। সম্প্রতি আগের ভোটার এলাকা পরিবর্তন করে মৈনম ইউনিয়নের বাসিন্দা হয়েছেন। এসব জটিলতার কারণে বঞ্চিত হন সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে। শিগগিরই তাঁকে ভাতার কার্ড করে দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে ইউএনও আবু বাক্কার সিদ্দিক বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। এ ধরণের ঘটনা ঘটে থাকলে খোঁজ নিয়ে তাঁকে ভাতা কার্ডের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

 

উত্তরা প্রতিদিন/ আমিনুল

 

 

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১১:২৮ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
এনায়েত করিম সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত)
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com