মঙ্গলবার ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

গোমস্তাপুরে বারোমাসি নতুন জাতের আমের সন্ধান

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিবেদক   |   শনিবার, ০৭ আগস্ট ২০২১ | প্রিন্ট

গোমস্তাপুরে বারোমাসি নতুন জাতের আমের সন্ধান

গোমস্তাপরের রাধানগর ইউনিয়নের রোকনপুর গ্রামে বারোমাসি আমের নতুন জাতের সন্ধান মিলেছে 

বারোমাসি নতুন জাতের একটি আমের দেখা মিলেছে আমের রাজধানী খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের রোকনপুর গ্রামে। বছরের প্রতিদিনই গাছগুলোতে মুকুলের দেখা মেলে। বাজারে আমের সময়ে যে সমস্ত জাতের আম পাওয়া যায় সে আমগুলো স্বাদের দিক দিয়ে অনন্য। কিন্তু একটা নির্দিষ্ট সময়েই এ আমগুলো পাওয়া যায়।

ভোক্তাদের সুবিধার্থে বারোমাসি আম এক নতুন মাত্রা যোগ করেছে। উপজেলায় এ জাতের আমের দেখা প্রথম মিলেছে। বারোমাসি আমের মধ্যে কাটিমন ও বারি-১১ আম অন্যতম। এ জাতের আমগুলো বেশ কয়েক বছর ধরে বাজারে দেখতে পাওয়া যায়। বর্তমানে যে জাতের আম পাওয়া গেছে এটি সম্পূর্ণ আলাদা জাতের। কারণ এর ফলন খুব বেশি। এ আমের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে একসাথে গাছে আমফল ও মুকুল ধরে।

আমচাষী নাজমুল হক জানান, প্রায় ১০ বছর আগে আমার এক আত্মীয়ের মাধ্যমে বিদেশি জাতের এ গাছের চারা পেয়েছিলাম। এ গাছগুলো দিয়ে আমি আমফল ও এ গাছের চারা তৈরী করে বিক্রি করে যাচ্ছি। একটি চারা ৫০০ টাকা দরে বিক্রি করি।

এখন পর্যন্ত এই গাছগুলোর নাম আমার জানা নেই। তবে কৃষি অফিস এ আমের নাম দিয়েছে স্যান্ডি। গাছগুলোর বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, প্রতিদিনই মুকুল ফুটে, একটি থোকায় অনেকগুলো আম আসে, আমের ভিতর আঁশ নেই, খেতে খুব সুস্বাদু ও মিষ্টি। এর এক একটির ওজন ৫০০ থেকে ৬৫০ গ্রাম। আমের ত্বক খুব পাতলা হলেও সেটিও অনেক মিষ্টি। আর এ আমের ত্বক হলদে হলে খাওয়ার উপযোগী হয়ে উঠে। তিনি আরো বলেন, আমগুলো পরিপক্ব হতে ক্ষিরসাপাত ও গোপালভোগ আমের মত সময় লাগে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সীমা কর্মকার জানান, কৃষক নাজমুল হকের বাগানে যে বৈশিষ্ট্যের আমগুলো দেখেছি ইতিপূর্বে আমি তা দেখি নাই। আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, একটা থোকায় লিচুর মতো অনেকগুলো আম ধরে। আর প্রতিদিনই মুকুল আসে। একটি মুকুল ভেঙে ফেললে সেটি আবার হয়। আমচাষীর ভাষ্যমতে আমরা ধারণা করছি ও বিভিন্ন বই-পুস্তক পড়ে জানতে পেরেছি এটি স্যান্ডি আমের জাতের মতো।

এ ব্যপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, পাশর্^বর্তী দেশ ভারত থেকে নিয়ে এসে আমচাষী নাজমুল হক পরীক্ষামুলকভাবে গাছের চারাটি রোপণ করে ভাল সাড়া পেয়েছেন। আমের ফলন ও পারিপার্শিকতা বিবেচনা করে স্থানীয়ভাবে এ আমের নাম দেয়া হয়েছে স্যান্ডি। আমচাষীরা এ জাতের আম চাষ করলে ভাল ফলাফল পাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যাক্ত করেন। এ ছাড়া আমের পরিচর্যায় আমচাষীদের সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

উত্তরা প্রতিদিন/আমিনুল

 

 

 

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১০:৫৭ অপরাহ্ণ | শনিবার, ০৭ আগস্ট ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
এনায়েত করিম সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত)
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com