রবিবার ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীতে ব্যস্ততা শুরু হচ্ছে কামার শ্রমিকদের

উত্তরা প্রতিবেদক   |   মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১ | প্রিন্ট

রাজশাহীতে ব্যস্ততা শুরু হচ্ছে কামার শ্রমিকদের

আসন্ন কুরবানী ইদকে সামনে রেখে ধারালো চাকু যাচাই বাছাই করছেন এক ব্যক্তি

পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে করোনা মহামারীর মধ্যেও ব্যস্ত সময় শুরু করতে চলেছেন রাজশাহীর কামাররা দা, বটি, ছুরিসহ মাংস কাটার বিভিন্ন সরঞ্জাম তৈরি নিয়ে। এসব সরঞ্জাম নতুনভাবে তৈরি এবং পুরনোগুলোতে শান দিতে খুব ব্যস্ত হয়ে উঠবে কারিগররা।

ঈদের দিন পর্যন্ত চলবে এমন ব্যস্ততা বলে জানিয়েছেন তারা। তবে কামার শ্রমিকরা জানান, কয়লা, লোহাসহ সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় আগের মতো লাভ হয় না। কিন্তু পূর্ব পুরুষের ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে তারা আজ পর্যন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন।

রাজশাহী শহরের বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চাপাতি, দা, বটি, চাকু, ছুরি তৈরি এবং পুরোনো ছুরি,দা শান দিতে ব্যস্ত সময় পার করবেন এখন কামাররা। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পরিশ্রম করছেন তারা। প্রতিবছর কোরবানির ঈদে তাদের জিনিসপত্রের তৈরীও কেনা-বেচা বেড়ে যায়।

এ থেকে অর্জিত টাকায় সারা বছরের খোরাক জোগাড় করেন। অথচ বছরের বেশির ভাগ সময়েই কামার শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা এক প্রকার বেকার সময় কাটান। প্রতিবছর কোরবানির মৌসুমে কামারদের ভালো ব্যবসা হয়।

তবে কয়েকজন কামারের মধ্যে জলিল মিয়া জানিয়েছেন, আগে একক ভাবে পশু কোরবানি দিতকিন্তু করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে এখন কয়েকজনে ভাগ করে দিচ্ছে। ফলে এসব কাজ গত ২ বছরের তুলনায় অনেক কম হচ্ছে।

দামের বিষয়ে কামাররা জানিয়েছেন বর্তমানে প্রতিটি দা তৈরিতে প্রকারভেদে মজুরি নেওয়া হচ্ছে ২০০ থেকে াকা ৩০০ টাকা পর্যন্ত। চাকু তৈরিতে নেওয়া হচ্ছে ১৫০ টাকা। বড় ছুড়ি তৈরিতে নেওয়া হচ্ছে ৪৫০ থেকে ৫৫০ টাকা। বটি তৈরিতে নেওয়া হচ্ছে ২০০ থেকে ৩৫০ টাকা।

কর্ণহার থানাধীন ডাঙ্গেরহাট এলাকার ক্রেতা মোঃ ইয়াকুব আলী জানান, পশু কোরবানি করে মাংস কাটতে প্রয়োজন হয় চাকু ও ছুরির। সে কারণে বাজারে এসেছি দা, বটি ও ছুরি কিনতে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এসব জিনিসের দাম এ বছর কিছুটা বেশি।

পশু কোরবানি করে মাংস কাটতে প্রয়োজন হয় চাকু ও ছুরির। সে কারণে বাজারে এসেছি দা, বটি ও ছুরি কিনতে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এসব জিনিসের দাম এ বছর কিছুটা বেশি।

কামার শিল্পের কারিগরা জনান, সারা বছরই আমরা দা, বটি, চাকু, ছুরি তৈরি করে বিক্রি করি। কিন্তু কোরবানির মৌসুমেই এসব সরঞ্জামের কেনা- চাহিদা বেশি থাকে। এবার চাহিদার তুলনায় কম বিক্রি হওয়ায় এ পেশার সাথে জড়িতরা দুর্দিনে আছে।

উত্তরা প্রতিদিন/একে

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১১:৪৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

এনায়েত করিম সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত)
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com