বুধবার ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

ভোলাহাটে কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বাদুড়

ভোলাহাট (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিবেদক   |   রবিবার, ১৩ জুন ২০২১ | প্রিন্ট

ভোলাহাটে কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বাদুড়

আগে প্রায়ই চোখে পড়ত গাছে গাছে ঝুলন্ত বাদুড় -প্রতিনিধি

আগে আম পেঁকে থাকতো গাছে গাছে, বাদুড় খেত গাছের পাকা আমগুলি আর পাকা আম গাছ থেকে পড়ে গেলে শিয়াল কুকুর এক সাথে পাশাপাশি মজা করে আম খেত। মধু মাসে মনে হতো শিয়াল আর কুকুরের মধ্যে কোনই বিরোধ নেই।

কিন্তু এখন আর বটগাছে বা বাঁশ ঝাড়ে বাদুড় ঝুলে না। আম গাছ তলায় শিয়াল কুকুরের সহাবস্থানও দেখা যায় না।এসবই ঘটতো বড় বড় আম বাগানে রাতের সময়। এখন হারিয়ে গেছে সেই সব মধুর দিনগুলি। ভোলাহাট থেকে হারিয়ে গেছে বাদুড়। আজকাল আর দেখাই যায় না বাদুড়।

গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি মো. মুক্তারুল ইসলাম জানান, প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় বাদুড়ের ভ‚মিকা আছে অনেক।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মো. সুমন আলী জানান, বাদুর থেকে নিপা ভাইরাস ও করোনা ভাইরাস মানুষের শরীরে এসেছে তাই বাদুর না থাকায় ভাল।

এক সমাজসেবক মো. তাজুল ইসলাম জানান, আমসহ বিভিন্ন ফলে কীটনাশক স্প্রে করায় সে সব ফল খেয়ে ধীরে ধীরে মরে গেছে বাদুড়। ফলে হারিয়ে গেছে এ সব প্রাণি।

মো. হায়াত উল্লাহ জানান, শীত মৌসুমে খেজুর গাছে গাছী রস লাগালে গাছে গাছে বাদুড়ের ডানা ঝাপটানো অপূর্ব সুন্দর দৃশ্য চোখে পড়তো। বাদুড় বিলুপ্ত হওয়ায় এখন আর সে সব দৃশ্য উপভোগ করতে পাওয়া যায় না।

ভোলাহাটের বিনোদন প্রেমিক মো. আজিজুল হক জানান, আম পাকার সময়টা জানিয়ে দিত বাদুড়। আম পাকলে বাদুড় খেয়ে গাছের নিচে ফেলে দিতো। বাদুড়ের খেয়ে ফেলা আম খেত ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা।

এদিকে লিচু গাছে বাদুড় থেকে রক্ষা পেতে জাল দিয়ে ঘেরে ঘণ্টা বাজানো হতো। আজ বাদুড় না থাকায় সেদিন শেষ হয়ে গেছে। এখন ভোলাহাটে বরই চাষ করছে। বরই চাষিরা তাদের জমির চারেদিক জাল দিয়ে ঘিরে রাখায় জালে আঁটকে মারা গেছে অনেক বাদুড়।

এদিকে ভোলাহাট উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আব্দুল্লাহ জানান, ভোলাহাটের বিশাল এলাকা জুড়ে আম বাগান রয়েছে। আম বাগানের আমে কীটনাশক ব্যবহার করায় খাদ্য ও বাসস্থানের অভাব দেখা দিয়েছে।

ফলে বাদুড় বিলুপ্ত হয়েছে। বাদুড়ের পূর্বের অবস্থান ফিরে পেতে হলে আমসহ বিভিন্ন ফলে কীটনাশক ব্যবহার বন্ধ করলে খাদ্য ও বাসস্থানের উপযুক্ত ব্যবস্থা হবে। তখন বাদুড়ের সেই পূর্বের ঐতিহ্য ফিরে আসবে। বাদুড়ের কলকাকলি ফিরে আসবে।

উত্তরা প্রতিদিন/একে

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১০:৫৩ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১৩ জুন ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ বাবলু সম্পাদক
এনায়েত করিম প্রধান বার্তা সম্পাদক
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com