রবিবার ১৩ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পুলিশের বিরুদ্ধে ২ প্রকৌশলীকে হেনস্তার অভিযোগ

উত্তরা ডেস্ক   |   শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১ | প্রিন্ট

পুলিশের বিরুদ্ধে ২ প্রকৌশলীকে হেনস্তার অভিযোগ

রাজশাহীতে পুলিশের বিরুদ্ধে দুই প্রকৌশলীকে হেনস্তার এবং উন্নয়ন কাজে বাধা সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলার বাগমারায় একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বহুতল ভবনের নির্মাণকাজ পরিদর্শন শেষে রাজশাহী ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রকৌশলীদের মধ্যে ক্ষোভ এবং অসন্তোষ বিরাজ করছে।

হেনস্তার শিকার ওই দুই প্রকৌশলী হলেন- শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর রাজশাহীর সহকারী প্রকৌশলী সুমন রানা (৩৮) ও জেলার বাগমারা উপজেলার উপসহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান মিজান (৩৫)। তবে দুই প্রকৌশলীকে হেনন্তার অভিযোগ অস্বীকার করেছে পুলিশ।

প্রকৌশলী সুমন রানা গণমাধ্যমকে জানান, বাগমারায় সৈয়দা ময়েজ উদ্দিন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে চারতলা ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। ভবনটির দ্বিতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ ছিল বৃহস্পতিবার। এ কারণে ওই দিন সকাল সাড়ে সাতটায় তিনিসহ প্রকৌশলী মিজান একটি প্রাইভেটকারে রাজশাহী থেকে বাগমারা রওনা হন। ঢালাইয়ের কাজ শেষে রাজশাহী ফেরার সময় নওহাটা ব্রিজের কাছে সন্ধ্যা ৭টার দিকে পবা থানার এএসআই ওলিউল আলম তাদের গাড়িটি আটকান।

তিনি বলেন, এরপর ওই পুলিশ কর্মকর্তা আমাদের গাড়ি থেকে নেমে আসতে বলেন। আমরা গাড়ি থেকে নামলে লকডাউনের সময় গাড়ি নিয়ে রাজশাহীর বাইরে কেন, এ বিষয়ে জানতে চান। আমরা শিক্ষা প্রকৌশলী অধিদপ্তরের প্রকৌশলী পরিচয় দিলে তিনি এ সময় আমাদের সঙ্গে অসদাচরণ করেন এবং থানায় নিয়ে যেতে উদ্যত হন। একপর্যায়ে আমি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল ইসলামকে বিষয়টি অবহিত করি। এরপরও এএসআই ওলিউল আলম আমাদের সঙ্গে অসদাচরণ করতে থাকেন। আধা ঘণ্টা পর আমাদের ছাড়েন।

এ বিষয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল ইসলাম বলেন, আমার দপ্তরের দুজন প্রকৌশলীকে সরকারি দায়িত্ব পালনের সময় আটক করেছে পুলিশ। এ সময় ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে আমি ফোন দিয়ে ওই দুই প্রকৌশলীকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলেছি। এ সময় আমার সঙ্গেও ওই পুলিশ কর্মকর্তা অসদাচরণ করেন। লকডাউনের সময়ও উন্নয়ন কর্মকাÐ চলমান থাকবে বলে সরকারিভাবে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। এরপরও ওই পুলিশ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালনরত দুজন প্রকৌশলীর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন। সরকারি কাজে বাধা দিয়েছেন। আমরা ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ দাবি করছি।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে পবা থানার ওসি (তদন্ত) বানী ইসরাইল বলেন, দুই প্রকৌশলীকে হেনস্তা বা তাদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগ সঠিক না। তাদেরকে শুধুমাত্র জিঙ্গিাসাবাদ করা হয়েছে। এরপর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

উত্তরা প্রতিদিন/একে

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১১:১৭ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১

uttaraprotidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ বাবলু সম্পাদক
এনায়েত করিম প্রধান বার্তা সম্পাদক
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com