রবিবার ১৩ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাঘায় জমে উঠেছে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের আমের ব্যবসা

নুরুজ্জামান, বাঘা প্রতিবেদক   |   রবিবার, ৩০ মে ২০২১ | প্রিন্ট

বাঘায় জমে উঠেছে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের আমের ব্যবসা

করোনাকালীন অনলাইনে আমের ব্যবসায় নেমেছে বাঘার শিক্ষার্থীরা

মহামারি করোনা সংকটের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় এবারও অনলাইনে জমে উঠেছে আম কেনা-বেচা। সশরীরে গ্রাহকদের উপস্থিতি ছাড়াই ফোনকল, ইমো, ভাইভার, হোয়াটস্যাপ আর ফেসবুক ম্যাসেনজারে ক্রেতাদের হাতে পৌঁছে যাচ্ছে বাঘার সুস্বাদু আম। এদিক থেকে ধস নেমেছে লকনা আমের বাজারে। আর কদর বেড়েছে সুস্বাদু হিমসাগর, গোপাল ভোগ ও ল্যাংড়া আমের। দিন যত অতিবাহিত হচ্ছে ততই বাড়ছে এ সব আমের চাহিদা ও দাম।

স্থানীয় আম ব্যবসায়ীরা জানান, বিগত সময়ে অনলাইনে আমের বেচা-বিক্রি ছিল না। গত বছর থেকে বাঘা সদর-সহ আশপাশের যুব সম্প্রদায় তথা কলেজগামী শিক্ষার্থীরা মহামারি করোনা সংকটের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এলাকার বাগান মালিকদের কাছ থেকে ভালো জাতের আম কিনে অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসা করছেন। এতে করে ভিড় বেড়েছে কুরিয়ার সার্ভিস ও রেল স্টোশন-সহ ঢাকাগামী বাস টার্মিনালে। আর অর্ডার নেয়া আমের অধিকাংশ কার্টুন চলে যাচ্ছে- ঢাকা , চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়।

বাঘার আমোদপুর গ্রামের তরুণ যুবক তানজিম হাসান স্বদেশ “রাজশাহী ম্যাংগো প্রোডাক্টস’’ নামে পেইজ খুলে তার তিন বন্ধুর সাথে গতবারের ন্যায় এবার অনলাইনে আম বিক্রি শুরু করেছেন। তার ছাপনো স্টিাকারে স্লোগান রয়েছে, আম খাবেন ? সেরাটায় খান, বাঘা-রাজশাহীর সুস্বাদু আম। আসল আমের আসল স্বাদ পেতে যোগাযোগ করুন “রাজশাহী ম্যাংগো প্রোডাক্টস এর ফেসবুক পেইজে’’ এতে করে তার অনেক অর্ডার আসছে এবং ভোক্তারা অল্প সময়ের মধ্যে পেয়ে যাচ্ছেন চাহিদা অনুযায়ী ফরমালিনমুক্ত সুস্বাদু ও পরিচ্ছন্ন আম।

শুধু স্বদেশ নয়, তার মতো আরো অনেক তরুণ উদ্যোক্তা আম ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। অনলাইনে অর্ডার নিয়ে তারা বাগান থেকে আম পেড়ে সেখানেই প্যাকিং করে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ভোক্তার নিকটস্থ কুরিয়া সেন্টারে পৌঁছে দিচ্ছেন। আবার অনেকেই হোম ডেলিভারি নিচ্ছেন।

ঢাকা থেকে অনলাইনের মাধ্যমে আম ক্রেতা কলেজ শিক্ষার্থী তিন্নি, গৃহিণী রুনা আক্তার ও শাকিলা এবং ঢাবি শিক্ষার্থী অর্কসহ অনেকেই জানান, বিগত সময়ে বাজার থেকে আম কিনে খেয়েছি। এ সব আম বাসায় নিয়ে এলে এক দুদিন পর পচন ধরে। এদিক থেকে আমরা গত বছর থেকে অনলাইনে আম কিনে লাভবান হয়েছি। এখানে টাকার পরিমাণ কিছুটা বেশি লাগলেও এই আম গুলো অনেকদিন রেখে খাওয়া যাই। কারণ এই আমে কোন ক্যামিকেল থাকে না। এর সাধও গুণগত মান বাজারে কেনা আমের চেয়ে অনেক ভালো।

এদিকে অনলাইনে আম পাঠানো প্রসঙ্গে বাঘার আমোদপুর গ্রামের কলেজ শিক্ষার্থী তানজিম হাসান স্বদেশ জানান, সখের বসে চার বন্ধু মিলে গত বছর অনলাইনে আম ডেলিভারি দেয়া শুরু করি। ভেবে ছিলাম এবার পড়া-লেখার চাপে হয়তো ব্যবসা করার সুযোগ পাব না। কিন্তু করোনা মহামারিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ফের আম চালান দিচ্ছি। এতে করে গতবার যারা আম নিয়েছেন তাঁদের দেখা দেখি আরো অনেকেই প্রতিদিন আমের অর্ডার দিচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি গ্রাহকদের কেমিক্যাল মুক্ত ভালো আম দেয়ার মাধ্যমে নিজেদের সুনাম ধরে রাখতে।

উত্তরা প্রতিদিন/আমি

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৯:৫৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, ৩০ মে ২০২১

uttaraprotidin.com |

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ বাবলু সম্পাদক
এনায়েত করিম প্রধান বার্তা সম্পাদক
প্রধান কার্যালয়

৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২

ফোন: ০৭২১-৭৬০১৪৩, ০১৯৭৭১০০০২৭

E-mail: uttaraprotidin@gmail.com